রকি রোড সানডে (৭)

উনার নাম ছিলো ছমিরন নেছা। প্রত্যেক ছেলে জন্মের সাথে সাথে এক হাত কইরা উনি খাঁটো হইছেন। উনি যখন মারা যান, তখন উনার উচ্চতা চার ফিট ছয় ইঞ্চি।

হোস্টেল (৮)

লিমন ভাইয়ার ক্যাঁ করে ওঠাটা খুবই আনস্মার্ট ছিল। আমার কানে ক্যাচ ক্যাচ করে লাগল। মানুষ তো স্মার্টলিও উহ্‌ আহ্‌ করতে পারে!

হোস্টেল (৭)

রিযাদ একটু কোমল স্বরে আমার দিকে ঘুরে বসে বলল, “নাও এটা তোমার জন্য আমার দেওয়া মনে হয় শেষ গোলাপ। এখন আর প্রতিদিন তোমাকে গোলাপ দেওয়া হবে না।

রকি রোড সানডে (৬)

আমার এক্সপেরিয়েন্স দুই মাসের, উনার এক্সপেরিয়েন্স তিরিশ বছরের। আমি কিছু একটা কইলেই “তুমি বেশি বুঝো?” মার্কা একটা চেহারা কইরা উনি আমার দিকে তাকায় থাকেন।

নারগিস (৪)

আমরা সেখানে অলিতে গলিতে হাঁটতাম আর যেই যেই বাড়ি পছন্দ হত সে বাড়িতে বেল বাজাতাম।

হোস্টেল (৬)

রিমন তাও দাঁড়িয়ে আছে। চশমা খুলে আমাকে বলল, “চল না একটু ছাদে যাই। বাসায় বলবা যে লিফট বন্ধ, তাই একটু লেট হল।

হোস্টেল (৫)

গোসলের সময় আসত সবাই জামা-কাপড় সব খুলে শুধু গামছা বা তোয়ালে জড়িয়ে বাথরুমে ঢুকত। গোসল করে বেরও হত ওই গামছা পরে।

খইট্টাল (৪)

অনেক খাওন দাওন আউশ-ফুত্তি দেইকখা সোবহান ভাইর সন্দো অয়।... বাপেরে দেহে পলাইয়া ছেনিত ধার দেয়।

সবুজ নৈরাজ্যবাদী (৩)

একটা নিখোঁজ ফেরির অনুসন্ধান এত দূর যাবে, কেউ অনুমান করতে পারে নি।

নারগিস (৩)

আন্টি বলল, দেখ প্রেম করো, যাই করো, তোমার আব্বার বয়সী লোকের সাথে রেস্টুরেন্টে যাওয়ার আগে একটু ভাইবো।

হোস্টেল (৪)

ঝর্না আপু তার একটা পা আমার কোলের উপর দিয়ে শুয়ে শুয়ে মুভি দেখার জন্য রেডি। এই পা তোলার ব্যাপারটায় আমি খুব বিরক্ত হই। কিন্তু কিছু বলতে পারি না কারণ ঝর্না আপু মিতা আপুরও আপু হয়।

সবুজ নৈরাজ্যবাদী (২)

ফিওনা ওই অধ্যাপকের কাছে ফিরে গেলে আমরা তিন জন একটি ত্রিভুজ সম্পর্কের মধ্যে নিজেদের আবিষ্কার করি। এবং প্রাথমিক শত্রুতার মনোভাব কেটে যেতে প্রফেসর কিমানির ব্যক্তিত্ব আর প্রতিভার মুগ্ধ ভক্তে পরিণত হই আমি।