গল্প

রোমানা

by

হায়দারের অনুরোধে আর নিজের গরজে লিজা তার পেশকার চাচারে বইলা কইয়া রুশোরে বাইরে আনার জোর চেষ্টা করতে থাকে।

মানসী

by

ওর বাসায় খুব রেস্ট্রিকশন রে। মানসীর বাপ একটা চুতিয়া আর মা একটা দ..দ..দজ্জাল।

অরূপ ভট্টের ওয়াইফাই জোন

by

দেখবেন হারুনের টি স্টল থেকে হোসেনের মুদি দোকান পর্যন্ত রাস্তার দু’ধারে অসংখ্য ইয়াংবয়সী ছেলে। প্রত্যেকেই হাতে স্মার্টফোন নিয়ে উবু হয়ে বসে আছে।

তারা মাংস দিয়ে বানানো

by

“মাংস ঝাপটালে বা একটার সাথে আরেকটা জোরে নাড়ালে শব্দ হয়। তারা এরকম শব্দ করেই কথা বলে। এমনকী তারা তাদের মাংসের ভিতর নিয়ন্ত্রিত ভাবে বাতাস নিয়ে গানও গাইতে পারে।”

গোল ও ক্লান্ত উদ্যানের ভিতর

by

বহু বহু বছর ভেসে সন্ধ্যায় একটি পার্কে এসে পৌঁছল সে এইভাবে, আমি ভাবি, এবং উদ্যানের নানা অলিগলিতে ঘুরে ঘুরে একটি খালি বেঞ্চি খুঁজতে থাকি। কিন্তু প্রতিটি বেঞ্চিই দখল হয়ে আছে।

জুঁই

by

যখন ট্রেন ছাড়ল, আমার জানালা ঘেঁষে প্লাটফর্ম ধরে হাঁটতে হাঁটতে কথাটা ও বলল। “যদি আর খোঁজ না থাকে, ঠিক দশ বছর পর এই তারিখে এই স্টেশনের ওভারব্রিজে থেকো, বিকেল পাঁচটায়।”

নঞ

by

না, আর কোনো থ্রেট-টরচার করে না। ভিকটিম নিজেই কনভিন্সড হইয়া কাজগুলা করে। খবরটা প্রকাশ করল দুই সাথীর একজন।